হযবরল অবস্থায় চলছে কেশবপুরে নিন্ম মাধ্যমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি

উৎপল দে, কেশবপুরঃ
যশোরের কেশবপুরে নিন্ম মাধ্যমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষক কর্মচারী কল্যাণ সমিতি হযবরল অবস্থায় চলছে। সমিতির কয়েক নেতার বিরুদ্ধে লাখ লাখ টাকা অর্থ আত্নসাৎ এর অভিযোগ উঠেছে। ওই সমিতির ইউনিয়ন পর্যায়ের কমিটি
এখনও সম্পন্ন না হলেও তড়িঘড়ি করে অবৈধভাবে উপজেলা কমিটি ঘোষণা দেয়া হয়েছে। ফেসবুকে ঘোষিত ওই কমিটি বাতিলের দাবিতে শিক্ষকরা ফুঁসে উঠেছেন।

অপরদিকে. পৌরসভা ও ৬নং ইউনিয়ন কমিটির ভোট গ্রহণ শনিবার অনুষ্ঠিত হবে। পৌর এলাকার কোনো স্কুল ভেনু দিতে রাজি না হওয়ায় অবশেষে সমিতির কার্যালয়ে শনিবার ভোট গ্রহণ করা হবে। দীর্ঘদিন ওই সমিতির কমিটি না থাকায় ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির মধ্যে দিয়ে চলছে সমিতির কার্যক্রম।

আরও পড়ুনঃ ১১ মাসে তিন বার কমিটি ঘোষণা কেশবপুরে নিন্ম মাধ্যমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষক কর্মচারী কল্যাণ সমিতি

এই সংক্রান্ত প্রতিবেদন গত এক সপ্তাহ ধরে পত্রিকায় ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয়ে আসছে। ইতোপূর্বে গত ১১ মাসে তিন বার কমিটি ঘোষণা হওয়ায় ব্যাপক আলোচিত হয়ে ওঠে কেশবপুরে নিন্ম মাধ্যমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষক কর্মচারী কল্যাণ সমিতি।জানা গেছে, দীর্ঘিাদন অ্যাডহক কমিটি দিয়ে চলার কারণে শিক্ষকদের দাবির
কারণে ১৩ জানুয়ারি ওই সমিতির তফষীল ঘোষণা করা হয়। কার্যনির্বাহী কমিটির ১৮টি পদে ৪১ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র ক্রয় করেন। এরমধ্যে ১ জন ইউনিয়ন প্রতিনিধি প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেন। ২৪ জানুয়ারি
মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষে দিনে কেউ মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেননি বলে জানা গেছে। ১৭ ফেব্রুয়ারি ভোট অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও পূর্বপরিকল্পিতভাবে ২৫ জানুয়ারি এসএম মুনজুর রহমানকে সভাপতি ও বাসুদেব সেনগুপ্তকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে কমিটি ঘোষণা দেয়া হয়। অথচ এখনও কেশবপুর ১১ টি ইউনিয়ন ও পৌরসভা এখনও প্রতিনিধি নির্বাচন নিয়ে ধ্রমুজাল সৃষ্টি হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ কেশবপুরে অবৈধভাবে মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির কমিটি গঠন 

এবিষয়ে সমিতির নেতাদের কাছ জানতে চাইলে এক এক নেতা এক এক ধরণের বক্তব্য দিচ্ছে। ফলে বিভ্রান্তিতে পড়তে হচ্ছে শিক্ষকদের। প্রধান শিক্ষক স্বপন মন্ডল ও শামসুর রহমান অভিযোগ করেন, গত ২৫ জানুয়ারি পূর্বপরিকল্পিতভাবে পকেট কমিটি করেছে। এই অবৈধ কমিটির বন্ধের দাবী জানান।মঙ্গলকোট আদর্শ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সমন্বয়কারি আজিজুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের সাথে অসৈজন্যমূলক আচারণ করে বলেন, প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিয়েছে। অথচ এডহক কমিটির যুগ্ম আহবায়ক বাসুদেব সেনগুপ্ত গত ২৫ জানুয়ারি সাংবাদিকদের জানান, মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করেনি। যা একাধিক পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ কেশবপুরে ৩ লাখ টাকা মূল্যের দুটি জার্সি গরু চুরি 

এ নিয়ে ধ্রুমজালের সৃষ্টি হয়েছে শিক্ষকদের মধ্যে। সুফলাকাটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ভারপ্রাপ্ত নির্বাচন কমিশনার এসএম আব্দুল মজিদ বলেন, সকলের মতামতে কমিটি গঠনের কথা বলা হয়েছিল। কিন্তু ১৭ ফেব্রয়ারির আগে কেন কমিটি ঘোষনা করা হলো তা আমি জানি না। এছাড়া তিনি আরও বলেন পৌর ও ৬ নম্বর ইউনিয়নে কমিটি শনিবার অনুষ্ঠিত হবে। অন্যগুলো সমঝোতা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *